1. nagorikkhobor@gmail.com : admi2017 :
  2. shobozcomilla2011@gmail.com : Nagorik Khobor Khobor : Nagorik Khobor Khobor
সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ০৮:৪৩ অপরাহ্ন

বিরোধীদের ছাড়াই শপথ- মুখ্যমন্ত্রীর চেয়ারে বসেই মোদিকে মমতার চিঠি

নাগরিক অনলাইন ডেস্কঃ
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৬ মে, ২০২১
  • ১৮৪ বার পঠিত
ফাইল ছ‌বি

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভার মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে গতকাল বুধবার অনাড়ম্বর পরিবেশে শপথ নিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বাম-কংগ্রেসকে খড়কুটোর মতো উড়িয়ে এবং বিজেপিকে ধরাশায়ী করে টানা তৃতীয় মেয়াদে মুখ্যমন্ত্রীর পদে আসীন হলেন লড়াকু এই নারী। তবে এবার পশ্চিমবঙ্গে বিরোধী দল হিসেবে আবির্ভূত হওয়া বিজেপির কেউ তার শপথ অনুষ্ঠানে যোগ দেননি।

এদিকে তৃতীয় মেয়াদে মুখ্যমন্ত্রীর চেয়ারে বসেই প্রথম কাজ হিসেবে করোনার টিকা চেয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি দিয়েছেন মমতা।

কলকাতায় পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপালের ভবন রাজভবনে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন মমতা। নিয়ম অনুযায়ী শপথ বইয়ে স্বাক্ষর করেন তিনি। তাকে শপথবাক্য পড়ান রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। জাতীয় সংগীত দিয়ে শুরু হয় অনুষ্ঠান। এর আগে রাজভবনে রাজ্যপাল ও তার স্ত্রী সুদেশ ধনখড়ের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন মমতা। মন্ত্রিপরিষদের বাকি সদস্যদের ৯ মে শপথ নেওয়ার কথা রয়েছে। বিধায়কদের আজ শপথ নেওয়ার কথা। শপথ অনুষ্ঠান শেষে দেওয়া বক্তব্যে রাজ্যপাল ধনখড় নির্বাচনোত্তর সহিংসতা বন্ধ করে রাজ্যের হারানো গৌরব পুনরুদ্ধারে মমতার প্রতি আহ্বান জানান।

করোনা মহামারি ও নির্বাচনোত্তর সহিংসতার ছায়ায় খুবই সীমিত পরিসরে শপথ অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। বরাবরের পোশাক সাদা শাড়ি ও শাল পরে শপথ নিয়েছেন ভারতে বর্তমানে ক্ষমতাসীন একমাত্র নারী মুখ্যমন্ত্রী। তবে মুখ্যমন্ত্রী পদে পূর্ণ মেয়াদে থাকতে হলে আগামী ছয় মাসের মধ্যে নতুন কোনো আসনে নির্বাচন করে জিততে হবে মমতাকে। নন্দীগ্রাম আসনে এক সময়ের শিষ্য শুভেন্দু অধিকারীর কাছে হেরে যান তিনি।

করোনার কারণে ২০১১ ও ২০১৬ সালের মতো এবার ঘটা করে শপথ অনুষ্ঠানের আয়োজন হয়নি। আমন্ত্রণ জানানো হয় মাত্র ৫০ জন অতিথিকে। গতকাল রাজভবনে শপথ অনুষ্ঠানে সামনের সারিতে বসেন ভোটগুরুখ্যাত প্রশান্ত কিশোর, তার পাশে মমতার ভাতিজা ও সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, তৃণমূল নেতা সুব্রত মুখোপাধ্যায়, পার্থ চট্টোপাধ্যায়, বিদায়ী স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়। দ্বিতীয় সারিতে বসেন কলকাতার প্রশাসক ও বিধায়ক তৃণমূলের ফিরহাদ হাকিম, সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়, অরূপ বিশ্বাস। এ ছাড়া সরকারি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আমন্ত্রণ করা হলেও শপথ অনুষ্ঠানে আসেননি প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য, সিপিএমের বর্ষীয়ান নেতা বিমান বসু, পশ্চিমবঙ্গ কংগ্রেসের সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী, প্রাক্তন দলনেতা আব্দুল মান্নান, বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ ও বিজেপি নেতা মনোজ টিজ্ঞা। আমন্ত্রণ পেয়েও আসেননি সৌরভ গাঙ্গুলীও। বিরোধী নেতাদের মধ্যে শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন শুধু কংগ্রেসের সাংসদ প্রদীপ ভট্টাচার্য।

শপথ অনুষ্ঠানের পর মুখ্যমন্ত্রীর কার্যালয় নবান্নে যাওয়ার আগে গার্ড অব অনার গ্রহণ করেন মমতা।

টুইটে মমতাকে শুভেচ্ছা মোদির :শপথ গ্রহণের পর মুখ্যমন্ত্রী মমতাকে টুইটে শুভেচ্ছা জানান ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। টুইটে তিনি লেখেন, ‘পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেওয়ার জন্য মমতা দিদিকে অভিনন্দন।’ অথচ ভোটের প্রচারে এসে মোদি বলেছিলেন, বিজেপি ক্ষমতায় আসছে। সরকারি কর্মকর্তাদের বিজেপির প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে কাজ শুরু করতেও বলেছিলেন। বিজেপির জয় নিশ্চিত ধরে নিয়ে মোদি বলেছিলেন, এবার মুখ্যমন্ত্রীর শপথ অনুষ্ঠানে আমি অবশ্যই আসব। তবে তার সে আশা শুধু কথাতেই রয়ে গেল। অবশ্য ভোটে জেতার পর মমতা বলেছিলেন, এবারই শুধু প্রধানমন্ত্রী তাকে ফোন করলেন না।

বিনামূল্যে টিকা চেয়ে মোদিকে মমতার চিঠি :গতকাল তৃতীয় মেয়াদে মুখ্যমন্ত্রীর চেয়ারে বসেই মমতা প্রথম চিঠি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী মোদিকে। তাতে তিনি পশ্চিমবঙ্গের মানুষের জন্য বিনামূল্যে টিকা চেয়েছেন। রাজ্যের নিজের টাকায় আগেও টিকা কিনতে চেয়ে না পাওয়ার কথা ফের উল্লেখ করেন তিনি। একই সঙ্গে চিঠিতে করোনা ভয়াবহতার বর্ণনাও দিয়েছেন মমতা। পরে সংবাদ সম্মেলনে রাজ্যবাসীকে করোনা মোকাবিলায় করণীয় সম্পর্কে নির্দেশনা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

মমতার শপথ শেষ হতেই বিজেপি প্রার্থীর বাড়িতে জুন মালিয়া :মমতার শপথ গ্রহণ শেষ হতেই মেদিনীপুরের নবনির্বাচিত বিধায়ক জুন মালিয়া তার কাছে পরাজিত বিজেপি প্রার্থী শমিত কুমার দাসের বাড়িতে যান। নির্বাচনোত্তর সহিংসতা যেন মাথাচাড়া না দেয় সেই জন্যই তার এই পদক্ষেপ। শমিতকে ভাইফোঁটাও দিয়েছেন জুন মালিয়া। এর মধ্য দিয়ে তৃণমূল ও বিজেপি কর্মীদের মধ্যে সৌহার্দ্যের বার্তা দিয়েছেন তিনি।

নন্দীগ্রামের ভোট পুনর্গণনায় মমতার আবেদন খারিজ :তৃণমল নেত্রী মমতার নন্দীগ্রাম আসনের ভোট পুনর্গণনার আবেদন খারিজ করে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। গত মঙ্গলবার নির্বাচন কমিশন এ সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে।

হারলেও শতাধিক আসন পেতামই- শুভেন্দু :বিধানসভা নির্বাচনোত্তর সহিংসতার প্রতিবাদে বিজেপি ধর্নায় বসে। সেখান থেকে বিজেপির প্রথম নেতা হিসেবে শুভেন্দুই নির্বাচন কমিশনের দিকে ব্যর্থতার অভিযোগ তুলেছেন। তার দাবি, ভোট গ্রহণ সুষ্ঠু হলেও গণনার সময় কমিশন ব্যর্থ হয়েছে। গণনায় কারচুপি ঠেকাতে পারেনি তারা। না হলে বিজেপি শতাধিক আসন পেত। ভোট পুনর্গণনার দাবি নিয়ে আদালতে যাওয়ার হুমকি দিয়েছেন শুভেন্দু। এ সময় সেখানে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2020 nagorikkhobor.Com
Theme Developed BY ThemesBazar.Com