1. nagorikkhobor@gmail.com : admi2017 :
  2. shobozcomilla2011@gmail.com : Nagorik Khobor Khobor : Nagorik Khobor Khobor
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৬:৩১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
‌দেশ বি‌দে‌শের সকল খবর জান‌তে নাগ‌রিক খব‌রের পা‌শে থাকুন ‌দেশ বি‌দে‌শের সকল খবর জান‌তে নাগ‌রিক খব‌রের পা‌শে থাকুন ‌দেশ বি‌দে‌শের সকল খবর জান‌তে নাগ‌রিক খব‌রের পা‌শে থাকুন ‌দেশ বি‌দে‌শের সকল খবর জান‌তে নাগ‌রিক খব‌রের পা‌শে থাকুন ‌দেশ বি‌দে‌শের সকল খবর জান‌তে নাগ‌রিক খব‌রের পা‌শে থাকুন ‌দেশ বি‌দে‌শের সকল খবর জান‌তে নাগ‌রিক খব‌রের পা‌শে থাকুন ‌দেশ বি‌দে‌শের সকল খবর জান‌তে নাগ‌রিক খব‌রের পা‌শে থাকুন কু‌মিল্লায় র‌্যা‌বের অ‌ভিযা‌নে ১১ হাজার পিস ইয়াবাসহ আটক ১ যুক্তরাষ্ট্রসহ বি‌শ্বের বি‌ভিন্ন দে‌শে ফি‌লি‌স্তি‌নি‌দের প‌ক্ষে বি‌ক্ষোভ চল‌ছে হামা‌সের হামলায় তিন ইসরা্ই‌লি সেনা নিহত

বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণা ও মুজিবনগর সরকার

আবদুল্লাহ আল-মামুন :
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১০ এপ্রিল, ২০২৩
  • ৪২৫ বার পঠিত

মুজিবনগর সরকার বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এক উজ্জ্বল অধ্যায়। মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা ও বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে সমর্থনের জন্য মুক্তিযুদ্ধকালীন গঠিত গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার মুজিবনগর সরকার নামে পরিচিত। কেউ বলেন প্রবাসী সরকার, কেউ বলেন অস্থায়ী সরকার, আবার কেউ বা বলেন বিপ্লবী সরকার।
বাংলার শোষিত, নিপীড়িত ও নির্যাতিত জনতার মুক্তির বাসনাকে সঠিক খাতে প্রবাহিত করে অভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক সমর্থনের মাধ্যমে স্বাধীনতা অর্জন করা ছিল মুজিবনগর সরকারের স্মরণীয় সাফল্য। টানা নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে শত্রুমুক্ত হয় এই প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশ। স্বাধীনতার মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে দেশমাতৃকার সম্মান রক্ষায় মরণপণ যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন বাংলার সূর্যসন্তানেরা।

বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতে ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল মুজিবনগর সরকার গঠিত হলেও শপথ গ্রহণ করে ১৭ এপ্রিল, বর্তমান মেহেরপুর জেলার বৈদ্যনাথতলা গ্রামে। এ সরকারের প্রধান (রাষ্ট্রপতি) হলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তাঁরই নামানুসারে বৈদ্যনাথতলার নতুন নামকরণ হয় মুজিবনগর এবং অস্থায়ী সরকারও পরিচিত হয় মুজিবনগর সরকার নামে।১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর আত্মসমর্পণ পর্যন্ত মুজিবনগর ছিল বাংলাদেশের প্রথম সরকারের রাজধানী। প্রথমে ৭টি মন্ত্রণালয় নিয়ে সরকার গঠিত হয় এবং ৪ জন মন্ত্রী এই ৭টি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। দেশি-বিদেশি শতাধিক সাংবাদিক ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে সংক্ষিপ্ত সময়ে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে মুজিবনগর সরকার শপথ গ্রহণ করে। মঞ্চে থাকা চেয়ারগুলোর মধ্যে একটি খালি রাখা হয়েছিল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্য। সেখানে Declaration of Independence (স্বাধীনতার মূল ঘোষণা আদেশ) পাঠ করেন গণপরিষদের স্পিকার ইউসুফ আলী। তিনিই ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি ও মন্ত্রীদের শপথ বাক্য পাঠ করান।

স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রে বলা হয়, ‘…এবং যেহেতু সার্বভৌম ক্ষমতার অধিকারী বাংলাদেশের জনগণ নির্বাচিত প্রতিনিধিদের প্রতি যে ম্যান্ডেট দিয়াছে সেই ম্যান্ডেট মোতাবেক আমরা নির্বাচিত প্রতিনিধিরা আমাদের সমন্বয়ে গণপরিষদ গঠন করিয়া পারস্পরিক আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে বাংলাদেশের জনগণের জন্য সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করা আমাদের পবিত্র কর্তব্য মনে করি, সেইহেতু আমরা বাংলাদেশে সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশে রূপান্তরিত করার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করিতেছি এবং উহার দ্বারা পূর্বাহ্নে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনতা ঘোষণা অনুমোদন করিতেছি।’ (মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম পিএসসি, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, পৃ. ৩২৪, কাকলী প্রকাশনী, ২০১৪)। প্রথমে কোরআন তিলাওয়াত হয়। তারপর বাংলাদেশের মানচিত্রশোভিত জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হল। স্থানীয় চার তরুণ গাইলেন জাতীয় সংগীত ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি..।

স্বাধীনতাযুদ্ধ চলাকালীন প্রধানত নিরাপত্তা এবং মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দানের সুবিধার্থে মুজিবনগর সরকারের প্রধান কার্যালয় কলকাতার ঐতিহাসিক থিয়েটার রোডের ৮নং বাড়িতে স্থানান্তরিত হয়। সেখান থেকেই মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন রাজনৈতিক, সামরিক এবং কূটনীতিক বিষয়গুলো পরিচালনা করা হয়েছিল।

ভারত সরকারের সাথে সমন্বয়, নিজেদের মধ্যে বিভেদ সামাল দেওয়া এবং আন্তর্জাতিক জনমত গঠন এসব কিছু একসাথে করতে হয়েছে অস্থায়ী সরকারকে। বঙ্গবন্ধু যেহেতু তখন পারিস্তানের কারাগারে, তাই তাঁর অনুপস্থিতিতে ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পড়েছিল উপ-রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলামের কাঁেধ। প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন তাজউদ্দীন আহমদ। মন্ত্রিপরিষদের বাকি তিন সদস্য ক্যাপ্টেন এম. মনসুর আলী, খোন্দকার মোশতাক আহমদ এবং এ এইচ এম কামারুজ্জামান। ১১ এপ্রিল যুদ্ধের সেনাপতি হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছিল কর্নেল এমএজি ওসমানীর নাম; আর সেনাবাহিনীর চিফ অব স্টাফ হিসেবে ঘোষণা করা হয় কর্নেল আব্দুর রবের নাম। বহির্বিশ্বে সরকারের বিশেষ দূত নিযুক্ত হয়েছিলেন বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরী। বাংলাদেশ সরকারের প্রতিনিধিরা সারা বিশে^ ছড়িয়ে পড়েন।

নবগঠিত সরকার শপথ নেওয়ার পর ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতিকে ইপিআরের (ইস্ট পাকিস্তান রেজিমেন্ট) একটি দল গার্ড অব অর্নার দেয়। ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম এবং প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ বক্তৃতা করেন। সৈয়দ নজরুল ইসলাম ভাষণে বলেন, ‘.. আমাদের রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিব বাংলার মানুষের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক অধিকারের জন্য সংগ্রাম করে আজ বন্দি। তাঁর নেতৃত্বে আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রাম জয়ী হবেই।’ (মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম পিএসসি, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, পৃ.৩২৪, কাকলী প্রকাশনী, ২০১৪)। তাজউদ্দীন আহামদ তাঁর ভাষণে উপস্থিত সাংবাদিকদের উদ্দেশে বলেন, ‘আমি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে আমাদের সাংবাদিক বন্ধুদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি এই জন্য যে, তারা আমাদের আমন্ত্রণে স্বাধীন বাংলাদেশের মাটি দেখে যাওয়ার জন্য বহু কষ্ট করে, বহু দূর দূরান্ত থেকে এখানে উপস্থিত হয়েছেন।

পশ্চিম পাকিস্তানি বর্বর হানাদার বাহিনী অপারেশন সার্চলাইটের নামে ২৫ মার্চ ঘুমন্ত, নিরস্ত্র, নিরাপরাধ বাঙালির উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে শুরু করে নির্বিচারে নির্মম হত্যাযজ্ঞ। ওই রাতেই বাঙালির প্রাণের নেতা শেখ মুজিবকে বন্দি করে নিয়ে যাওয়া হয় পশ্চিম পাকিস্তানে।

তারা ভেবেছিল হয়তো শেখ মুজিবকে বন্দি করলেই বাঙালিকে রুখে দেওয়া যাবে। কিন্তু একাত্তরে মুক্ত মুজিবের চেয়েও বন্দি মুজিব বাংলার মানুষের কাছে হয়ে ওঠেন পাহাড়সম প্রেরণার উৎস। তাই তো ধর্ম-বর্ণ, নির্বিশেষে ঐক্যবদ্ধ হয়ে এক দাবি-বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য দৃপ্ত শপথ নেয় বাঙালি জাতি। এর আগে ৭ মার্চে রেসকোর্স ময়াদানের বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ডাক দিলেন। পাশাপশি জনগণকে সার্বিক আন্দোলন এবং যুদ্ধের প্রস্তুতির জন্য ঘরে ঘরে দূর্গ গড়ে তোলার আহ্বান জানালেন। (এম আমীর-উল ইসলাম, একাত্তরের মার্চ থেকে প্রবাসী সরকার, ২৬ মার্চ ২০১৫)। ঐতিহাসিক সেই ভাষণে বঙ্গবন্ধু বললেন, ‘..রক্ত যখন দিয়েছি রক্ত আরো দেবো। এদেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়বো ইনশাআল্লাহ। এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম, জয় বাংলা।’ (শেখ মুজিবুর রহমান, কারাগারের রোজনামচা, পৃ.২৭৬, বাংলা একাডেমি, ঢাকা, ২০১৮)

বঙ্গবন্ধুর উদাত্ত আহ্বানে স্বাধীনতাকামী বাঙালি প্রথমে দেশের ভেতরেই প্রতিরোধ যুদ্ধ গড়ে তোলে। পাকিস্তানি সেনারা যখন প্রতিটি শহরে ও গ্রামে গণহত্যা ও ধ্বংসযজ্ঞ চালাতে থাকে, তখন দেশের ভেতরে থেকে যুদ্ধ করা কঠিন হয়ে পড়ে, রাজনৈতিক নেতৃত্ব সীমান্ত পার হয়ে ভারতে আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়। মার্চের শেষ দিকে ঝিনাইদহের সে সময়কার এসডিপিও মাহবুব উদ্দিন আহমেদ পিএসপি এবং মেহেরপুরের এসডিও তৌফিক এলাহী চেীধুরী সিএসপি-এর সহযোগিতায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তাজউদ্দীন আহমদ সহযোগী আমীর-উল ইসলামকে নিয়ে সীমান্ত পার হন এবং ৩ এপ্রিল দিল্লিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে ভারত সরকারের সহযোগিতা চান। প্রশ্ন হল, কাকে এবং কীভাবে সহযোগিতা দেবে তারা? এজন্য একটি আইনানুগ কাঠামো দরকার। তাজউদ্দীন আহমদ কলকাতায় ফিরে আওয়ামী লীগের অন্য নেতাদের খুঁজে বের করলেন, তাদের রাজি করালেন। তিনি যুক্তি দেখালেন, সরকার গঠন না হলে ভারত সরকারের সার্বিক সহযোগিতা পাওয়া যাবে না।

আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমে প্রচারিত হয় পশ্চিম পাকিস্তানের জেনারেল ইয়াহিয়া খান ঘোষণা করেছিল সামরিক আদালতে শেখ মুজিবুর রহমানের বিচার করা হবে। অর্থাৎ একথা স্পষ্ট হল যে, পাকিস্তানের সামরিক আদালতের বিচারে বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ফাঁসি দেয়া হবে। এ সামরিক বিচারের ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে ইন্দিরা গান্ধী বিশ্বের সকল রাষ্ট্রনেতার কাছে বঙ্গবন্ধুর প্রাণ রক্ষার আবেদন জানান। ১৯৭১ সালের সেপ্টেম্বরে মস্কোর একটি সভাতে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে যা ঘটছে তাকে এখন আর ওই দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয় বলে এড়িয়ে যাওয়া যাবে না। প্রায় এক কোটি মানুষ আমাদের দেশে আশ্রয় নিয়েছেন। ওই মানুষগুলোর কি নিজের দেশের বসবাস করার বা কাজ করার অধিকার নেই? …এখন বিশ্বের রাষ্ট্রনেতাদের দেখতে হবে যাতে এই অসহায় মানুষগুলো নির্ভয়ে নিজের দেশে ফিরে যেতে পারে।’

৭ জুলাই মার্কিন প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সনের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা হেনরি কিসিঞ্জার ভারতে আসেন। বাংলাদেশ পরিস্থিতি আলোচনায় কিসিঞ্জার জানালেন বাংলাদেশকে কেন্দ্র করে কোনও যুদ্ধে ভারত অগ্রসর হলে আমেরিকা ভারতের পাশে দাঁড়াবে না। সে সময় আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হয় কিসিঞ্জার ভারত থেকে পাকিস্তান হয়ে গোপনে চীনে গিয়েছিলেন। ইন্দিরার পরামর্শদাতা পিএন হাকসার, ডি পি ধর, টি এন কল এবং এল কে ঝা (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে তৎকালীন ভারতের রাষ্ট্রদূত) প্রধানমন্ত্রীকে সোভিয়েত রাশিয়ার সহায্য নিতে পরামর্শ দিলেন। কিসিঞ্জারের চীন-বৈঠকের এক মাস পর ‘রুশ-ভারত শান্তি বন্ধুত্ব ও সহযোগিতা’ অর্থাৎ ‘রুশ-ভারত মৈত্রী’ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় ৯ অগাস্ট ১৯৭১। এর ফলে ইয়াহিয়া খান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ফাঁসির আদেশ দিতে ভয় পেয়ে যায়।

স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় অন্যতম ভূমিকা পালন করে মুজিবনগর সরকারের অভ্যন্তরীণ প্রশাসন। অভ্যন্তরীণ প্রশাসন ছিল সামরিক ও বেসামরিক এ দু’ভাগে বিভক্ত। সামরিক প্রশাসন নিয়ন্ত্রিত হতো প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে। বাংলাদেশের সমগ্র যুদ্ধাঞ্চলকে ১১টি সেক্টরে ভাগ করে অধিনায়ক নিযুক্ত করা ও যুদ্ধ পরিচালনা তদারকি করা ছিল এ মন্ত্রণালয়ের প্রধান কাজ। বেসামরিক প্রশাসনের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছিল সাধারণ প্রশাসন এবং তথ্য ও বেতার বিভাগ। সাধারণ প্রশাসন বিভাগ নিয়োগ, বদলি, শৃঙ্খলা রক্ষা ইত্যাদি সংস্থাপন বিষয়ক যাবতীয় দায়িত্ব পালন করত। আঞ্চলিক প্রশাসন ছিল বেসরকারি প্রশাসনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। শরণার্থী সমস্যা, আঞ্চলিক সামরিক-বেসামরিক বিষয়াবলির সুষ্ঠু সমন্বয় ইত্যাদি ছিল আঞ্চলিক প্রশাসনের প্রধান কাজ। এছাড়া অভ্যন্তরীণ প্রশাসনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ ছিল স্বাধীন বাংলা বেতারকেন্দ্র। এ বেতারকেন্দ্রে প্রায় ১০০ লোক নিয়োগ করা হয়েছিল। বিভিন্ন রণাঙ্গনের যুদ্ধের খবর, পাকিস্তানি বাহিনীর হত্যা, ধর্ষণ ও নির্যাতনের খবর এবং পাকিস্তানিবাহিনীকে ধিক্কার দিয়ে ও বিদ্রুপ করে রচিত চরমপত্র এই বেতার কেন্দ্রের মাধ্যমে প্রচার করা হত। এ বেতারকেন্দ্রটি মুক্তিযোদ্ধাদেরকে দারুণভাবে উজ্জীবিত করতো।

মুজিবনগর সরকার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরীকে বহির্বিশ্বে বিশেষ দূত নিয়োগ করে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে বহির্বিশ্বে সমর্থন ও জনমত আদায়ের চেষ্টা করেন। এ ধরনের তৎপরতার ফলে ঐসব দেশে মুক্তিযুদ্ধের অনুকূলে সংবাদ শিরোনাম প্রকাশিত হয়েছিল। ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল বিচারপতি চৌধুরী বঙ্গবন্ধুর শারীরিক সুস্থতা ও প্রাণহানির আশঙ্কায় বৃটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী স্যার আলেকের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন এবং বঙ্গবন্ধুর শারীরিক সুস্থতা সম্পর্কে নিশ্চিত হন। ১৪ মে ব্রিটিশ পার্লামেন্টের হাউস অব কমন্সে সর্বসম্মতভাবে প্রস্তাব পাশ হয় যে, আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে ব্রিটেনের যে প্রভাব রয়েছে তা প্রয়োগ করে পাকিস্তানকে সেনাবাহিনী প্রত্যাহারে বাধ্য করা ব্রিটিশ সরকারের কর্তব্য। পাকিস্তানের অত্যাচারী সামরিক সরকারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ এবং স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দানের জন্য বিশ্বজনমতকে প্রভাবিত করার উদ্দেশ্যে ১ আগস্ট লন্ডনের ট্রাফালগার স্কোয়ারে এক বিরাট জনসমাবেশ অনুষ্ঠিত হয় যেখানে ২০ হাজারেরও বেশি বাঙালি যোগ দেন।

১ আগস্ট নিউইয়র্কের ম্যাডিসন স্কোয়ার গার্ডেনে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে বাঙালি শরণার্থীদের সাহায্যে অর্থ তহবিল গঠনের লক্ষ্যে ‘দ্যা কনসার্ট ফর বাংলাদেশ’-এর আয়োজন করে আমেরিকা প্রবাসী বাংলাদেশি জনগণ। সে কনসার্টেপ্রায় ৪০ হাজার দর্শকের উপস্থিতিতে সাবেক বিটলস্ সঙ্গীতদলের লিড গিটারবাদক জর্জ হ্যারিসন,ভারতীয় সেতারবাদক রবিশঙ্কর ও সরোদবাদক ওস্তাদ আলী আকবর খাঁসহ আরো অনেকে অংশগ্রহণ করেন। মার্কিন কবি অ্যালেন গিন্সবার্গ ১৯৭১ সালের সেপ্টেম্বরে কোলকাতা সংলগ্ন ভারতীয় সীমান্ত ধরে বাংলাদেশের কাছাকাছি আসেন। তাঁর সঙ্গে ছিলেন কোলকাতার সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়সহ বিশিষ্ট ব্যক্তিগণ। সীমান্ত অঞ্চলে শরণার্থীদের অশেষ দুর্দশা ও লাঞ্ছনাকে অবলম্বন করে তিনি তাঁর অন্যতম দীর্ঘ কবিতা ‘সেপ্টেম্বর অন যশোর রোড’ রচনা করেন। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের জন্যে অর্থসহায়তা করার লক্ষ্যে তিনি বিশিষ্ট রুশ কবি ইয়েভগেনি ইয়েভতুশেঙ্কোর সঙ্গে একটি যৌথ কবিতা পাঠ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলেন।

লন্ডনস্থ পাকিস্তান হাইকমিশনে নিয়োজিত দ্বিতীয় সেক্রেটারি মহিউদ্দিন আহমদ পাকিস্তানের চাকরি হতে ইস্তফা দিয়ে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করেন। ১ আগস্ট বাংলাদেশ সরকারে প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করেন ওয়াশিংটনে পাকিস্তানি দূতাবাসের ইকনমিক কাউন্সিলর এ এম এ মুহিত। ৪ আগস্ট ওয়াশিংটনে অবস্থিত পাকিস্তান দূতাবাস ও নিউইয়র্কে অবস্থিত জাতিসংঘ দপ্তরে পাকিস্তানি মিশনের মোট ১৫ জন বাঙালি কূটনীতিক একযোগে পদত্যাগ করে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করে। ৫ আগস্ট বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করেন লন্ডনস্থ পাকিস্তান হাইকমিশনের ডিরেক্টর অব অডিট ও অ্যাকাউন্টস লুৎফুল মতিন। বঙ্গবন্ধুর বিচারের প্রতিবাদে ১১ আগস্ট লন্ডনের হাইড পার্কে এক বিরাট জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। এই জনসভায় পাকিস্তান হাইকমিশনের কয়েকজন অফিসার বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করেন। ম্যানিলায় নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত খুররম খান পন্নী এবং নাইজেরিয়ায় নিয়োজিত কূটনীতিক মহীউদ্দিন আহমদ জায়গিরদার ১৩ সেপ্টেম্বর পাকিস্তানের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করে বাংলাদেশের পক্ষে যোগ দেন। ৪ অক্টোবর নয়াদিল্লিস্থ পাকিস্তানি দূতাবাসের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে হুমায়ূন রশিদ চৌধুরী প্রকাশ্যে বাংলাদেশ আন্দোলনে যোগদান করেন। ৮ অক্টোবর লন্ডনস্থ পাকিস্তান হাইকমিশনের ‘পলিটিক্যাল কাউন্সিলর’ রেজাউল করিম বাংলাদেশের পক্ষে যোগদান করেন। আর্জেন্টিনায় পাকিস্তানি দূতাবাসে নিয়োজিত বাঙালি রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোমিন ১১ অক্টোবর পদত্যাগ করে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করেন। ৩ নভেম্বর সুইজারল্যান্ডের পাকিস্তানি দূতাবাসের সেকেন্ড সেক্রেটারি ওয়ালিউর রহমান বাংলাদেশের পক্ষে যোগ দেন।

মে মাসের প্রথম দিকে শেখ মুজিবের অর্থনৈতিক উপদেষ্টা অধ্যাপক রেহমান সোবহান সরকারের নির্দেশে যুক্তরাষ্ট্রে যান। তিনি ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশ সরকারের প্রথম প্রতিনিধি। দ্বিতীয় দফায় তিনি সেপ্টেম্বর হতে নভেম্বর পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করেন।AID Consortium-এর সদস্য দেশের প্রতিনিধিদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তিনি পাকিস্তানকে বৈদেশিক সাহায্য বন্ধ করার যুক্তি উপস্থাপন করেন। এসব তৎপরতার ফলে জুন মাসে বিশ্বব্যাংকের এক প্রতিনিধিদল বাংলাদেশ সফর করে। তাদের রিপোর্টের ভিত্তিতে দাতাগোষ্ঠী পাকিস্তানকে নতুন সাহায্যদানে বিরত থাকে এবং ঋণ রেয়াতি দিতেও আপত্তি জানায়। ২ অক্টোবর ওয়াশিংটনে দাতাগোষ্ঠীর সভা বসে। এবারও পাকিস্তানকে সাহায্য প্রদান স্থগিত করা হয়।

মুজিবনগর সরকার ২৪ মে বিচারপতি চৌধুরীকে যুক্তরাষ্ট্রে প্রেরণ করে। জনাব চৌধুরী ছিলেন মুজিবনগর সরকারের দ্বিতীয় প্রতিনিধি যিনি যুক্তরাষ্ট্রে যান। কয়েকদিনের মধ্যেই তিনি নরওয়ে, সুইডেন, মিশর, ইরাক, জর্ডান, সিরিয়া, সৌদি আরব, আলজেরিয়া প্রভৃতি দেশের রাষ্ট্রদূত এবং জাতিসংঘে অবস্থিত আন্তর্জাতিক প্রেসক্লাবের প্রেসিডেন্ট ড. যোগেন্দ্র কুমার ব্যানার্জীর সাথে সাক্ষাৎ করেন। এর ফলে মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে বিভিন্ন দেশ পরিষ্কার ধারণা লাভ করে। ১৯ আগস্ট কানাডার টরেন্টোতে বাংলাদেশ সংকট নিয়ে একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। বৃটেন, কানাডা, ভারত, যুক্তরাষ্ট্র প্রভৃতি দেশের জনপ্রতিনিধিসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের অনেক গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন। ‘Toronto Declaration’ নামে যে ঘোষণা দেওয়া হয় সেখানে পাকিস্তানে সব ধরনের সাহায্য বন্ধ রাখা এবং সমস্যার রাজনৈতিক সমাধান দাবি করে শেখ মুজিবের মুক্তি ও জীবনের নিশ্চয়তা চাওয়া হয়।

২৬ জুলাই হাউস অব কমন্সের হারকোর্ট রুমে স্বাধীন বাংলাদেশের ৮টি ডাকটিকিট প্রকাশ উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। দশ পয়সার টিকিটে বাংলাদেশের মানচিত্র এবং পাঁচ পয়সার টিকিটে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের প্রতিকৃতি ব্যবহৃত হয়। বিদেশে চিঠিপত্র পাঠাতে ভারত সরকার এই ডাক টিকিটসমূহ ব্যবহারের অনুমতি দেয়। এর ফলে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন বাংলাদেশ একটি স্বাধীন দেশের মর্যাদা পায়।

১৯৭১ সালের ৮ মে যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন অ্যাকশন কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের জরুরি মিটিংয়ে মুক্তিযুদ্ধের সমর্থনে ‘বাংলাদেশ ফান্ড’ নামে একটি তহবিল গঠন করা হয়। এই ফান্ড ৩,৭৬,৫৬৮ পাউন্ড পরিমাণ অর্থ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের জন্য সংগ্রহ করে যা সরাসরি বাংলাদেশ সরকার গ্রহণ করেছিল। এভাবে বহির্বিশ্বে বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন কূটনৈতিক তৎপরতার মধ্যদিয়ে এগিয়ে চলে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ। অবশেষে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর পূর্ব পাকিস্তানে নিয়োজিত পাকিস্তান বাহিনীর অধিনায়ক লে. জেনারেল নিয়াজী পূর্বাঞ্চলে নিয়োজিত ভারতীয় ও বাংলাদেশ বাহিনীর যৌথ কমান্ডার লে. জেনারেল জগজিৎ সিং অরোরার নিকট বিকাল ৪.৩১ মিনিটে আনুষ্ঠানিকভাবে আত্মসমর্পণ করে।

 

স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রে বলা হয়, ‘…এবং যেহেতু সার্বভৌম ক্ষমতার অধিকারী বাংলাদেশের জনগণ নির্বাচিত প্রতিনিধিদের প্রতি যে ম্যান্ডেট দিয়াছে সেই ম্যান্ডেট মোতাবেক আমরা নির্বাচিত প্রতিনিধিরা আমাদের সমন্বয়ে গণপরিষদ গঠন করিয়া পারস্পরিক আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে বাংলাদেশের জনগণের জন্য সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করা আমাদের পবিত্র কর্তব্য মনে করি, সেইহেতু আমরা বাংলাদেশে সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশে রূপান্তরিত করার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করিতেছি এবং উহার দ্বারা পূর্বাহ্নে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনতা ঘোষণা অনুমোদন করিতেছি।’ (মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম পিএসসি, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, পৃ. ৩২৪, কাকলী প্রকাশনী, ২০১৪)। প্রথমে কোরআন তিলাওয়াত হয়। তারপর বাংলাদেশের মানচিত্রশোভিত জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হল। স্থানীয় চার তরুণ গাইলেন জাতীয় সংগীত ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি—।

স্বাধীনতাযুদ্ধ চলাকালীন প্রধানত নিরাপত্তা এবং মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দানের সুবিধার্থে মুজিবনগর সরকারের প্রধান কার্যালয় কলকাতার ঐতিহাসিক থিয়েটার রোডের ৮নং বাড়িতে স্থানান্তরিত হয়। সেখান থেকেই মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন রাজনৈতিক, সামরিক এবং কূটনীতিক বিষয়গুলো পরিচালনা করা হয়েছিল। ভারত সরকারের সাথে সমন্বয়, নিজেদের মধ্যে বিভেদ সামাল দেওয়া এবং আন্তর্জাতিক জনমত গঠন এসব কিছু একসাথে করতে হয়েছে অস্থায়ী সরকারকে। বঙ্গবন্ধু যেহেতু তখন পারিস্তানের কারাগারে, তাই তাঁর অনুপস্থিতিতে ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পড়েছিল উপ-রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলামের কাঁেধ। প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন তাজউদ্দীন আহমদ। মন্ত্রিপরিষদের বাকি তিন সদস্য ক্যাপ্টেন এম. মনসুর আলী, খোন্দকার মোশতাক আহমদ এবং এ এইচ এম কামারুজ্জামান। ১১ এপ্রিল যুদ্ধের সেনাপতি হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছিল কর্নেল এমএজি ওসমানীর নাম; আর সেনাবাহিনীর চিফ অব স্টাফ হিসেবে ঘোষণা করা হয় কর্নেল আব্দুর রবের নাম। বহির্বিশ্বে সরকারের বিশেষ দূত নিযুক্ত হয়েছিলেন বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরী। বাংলাদেশ সরকারের প্রতিনিধিরা সারা বিশে^ ছড়িয়ে পড়েন।

নবগঠিত সরকার শপথ নেওয়ার পর ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতিকে ইপিআরের (ইস্ট পাকিস্তান রেজিমেন্ট) একটি দল গার্ড অব অর্নার দেয়। ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম এবং প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ বক্তৃতা করেন। সৈয়দ নজরুল ইসলাম ভাষণে বলেন, ‘.. আমাদের রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিব বাংলার মানুষের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক অধিকারের জন্য সংগ্রাম করে আজ বন্দি। তাঁর নেতৃত্বে আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রাম জয়ী হবেই।’ (মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম পিএসসি, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, পৃ.৩২৪, কাকলী প্রকাশনী, ২০১৪)। তাজউদ্দীন আহামদ তাঁর ভাষণে উপস্থিত সাংবাদিকদের উদ্দেশে বলেন, ‘আমি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে আমাদের সাংবাদিক বন্ধুদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি এই জন্য যে, তারা আমাদের আমন্ত্রণে স্বাধীন বাংলাদেশের মাটি দেখে যাওয়ার জন্য বহু কষ্ট করে, বহু দূর দূরান্ত থেকে এখানে উপস্থিত হয়েছেন।

পশ্চিম পাকিস্তানি বর্বর হানাদার বাহিনী অপারেশন সার্চলাইটের নামে ২৫ মার্চ ঘুমন্ত, নিরস্ত্র, নিরাপরাধ বাঙালির উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে শুরু করে নির্বিচারে নির্মম হত্যাযজ্ঞ। ওই রাতেই বাঙালির প্রাণের নেতা শেখ মুজিবকে বন্দি করে নিয়ে যাওয়া হয় পশ্চিম পাকিস্তানে। তারা ভেবেছিল হয়তো শেখ মুজিবকে বন্দি করলেই বাঙালিকে রুখে দেওয়া যাবে। কিন্তু একাত্তরে মুক্ত মুজিবের চেয়েও বন্দি মুজিব বাংলার মানুষের কাছে হয়ে ওঠেন পাহাড়সম প্রেরণার উৎস। তাই তো ধর্ম-বর্ণ, নির্বিশেষে ঐক্যবদ্ধ হয়ে এক দাবি-বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য দৃপ্ত শপথ নেয় বাঙালি জাতি। এর আগে ৭ মার্চে রেসকোর্স ময়াদানের বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ডাক দিলেন। পাশাপশি জনগণকে সার্বিক আন্দোলন এবং যুদ্ধের প্রস্তুতির জন্য ঘরে ঘরে দূর্গ গড়ে তোলার আহ্বান জানালেন। (এম আমীর-উল ইসলাম, একাত্তরের মার্চ থেকে প্রবাসী সরকার, ২৬ মার্চ ২০১৫)। ঐতিহাসিক সেই ভাষণে বঙ্গবন্ধু বললেন, ‘..রক্ত যখন দিয়েছি রক্ত আরো দেবো। এদেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়বো ইনশাআল্লাহ। এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম, জয় বাংলা।’ (শেখ মুজিবুর রহমান, কারাগারের রোজনামচা, পৃ.২৭৬, বাংলা একাডেমি, ঢাকা, ২০১৮)

বঙ্গবন্ধুর উদাত্ত আহ্বানে স্বাধীনতাকামী বাঙালি প্রথমে দেশের ভেতরেই প্রতিরোধ যুদ্ধ গড়ে তোলে। পাকিস্তানি সেনারা যখন প্রতিটি শহরে ও গ্রামে গণহত্যা ও ধ্বংসযজ্ঞ চালাতে থাকে, তখন দেশের ভেতরে থেকে যুদ্ধ করা কঠিন হয়ে পড়ে, রাজনৈতিক নেতৃত্ব সীমান্ত পার হয়ে ভারতে আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়। মার্চের শেষ দিকে ঝিনাইদহের সে সময়কার এসডিপিও মাহবুব উদ্দিন আহমেদ পিএসপি এবং মেহেরপুরের এসডিও তৌফিক এলাহী চেীধুরী সিএসপি-এর সহযোগিতায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তাজউদ্দীন আহমদ সহযোগী আমীর-উল ইসলামকে নিয়ে সীমান্ত পার হন এবং ৩ এপ্রিল দিল্লিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে ভারত সরকারের সহযোগিতা চান। প্রশ্ন হল, কাকে এবং কীভাবে সহযোগিতা দেবে তারা? এজন্য একটি আইনানুগ কাঠামো দরকার। তাজউদ্দীন আহমদ কলকাতায় ফিরে আওয়ামী লীগের অন্য নেতাদের খুঁজে বের করলেন, তাদের রাজি করালেন। তিনি যুক্তি দেখালেন, সরকার গঠন না হলে ভারত সরকারের সার্বিক সহযোগিতা পাওয়া যাবে না।

আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমে প্রচারিত হয় পশ্চিম পাকিস্তানের জেনারেল ইয়াহিয়া খান ঘোষণা করেছিল সামরিক আদালতে শেখ মুজিবুর রহমানের বিচার করা হবে। অর্থাৎ একথা স্পষ্ট হল যে, পাকিস্তানের সামরিক আদালতের বিচারে বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ফাঁসি দেয়া হবে। এ সামরিক বিচারের ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে ইন্দিরা গান্ধী বিশ্বের সকল রাষ্ট্রনেতার কাছে বঙ্গবন্ধুর প্রাণ রক্ষার আবেদন জানান। ১৯৭১ সালের সেপ্টেম্বরে মস্কোর একটি সভাতে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে যা ঘটছে তাকে এখন আর ওই দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয় বলে এড়িয়ে যাওয়া যাবে না। প্রায় এক কোটি মানুষ আমাদের দেশে আশ্রয় নিয়েছেন। ওই মানুষগুলোর কি নিজের দেশের বসবাস করার বা কাজ করার অধিকার নেই? …এখন বিশ্বের রাষ্ট্রনেতাদের দেখতে হবে যাতে এই অসহায় মানুষগুলো নির্ভয়ে নিজের দেশে ফিরে যেতে পারে।

৭ জুলাই মার্কিন প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সনের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা হেনরি কিসিঞ্জার ভারতে আসেন। বাংলাদেশ পরিস্থিতি আলোচনায় কিসিঞ্জার জানালেন বাংলাদেশকে কেন্দ্র করে কোনও যুদ্ধে ভারত অগ্রসর হলে আমেরিকা ভারতের পাশে দাঁড়াবে না। সে সময় আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হয় কিসিঞ্জার ভারত থেকে পাকিস্তান হয়ে গোপনে চীনে গিয়েছিলেন। ইন্দিরার পরামর্শদাতা পিএন হাকসার, ডি পি ধর, টি এন কল এবং এল কে ঝা (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে তৎকালীন ভারতের রাষ্ট্রদূত) প্রধানমন্ত্রীকে সোভিয়েত রাশিয়ার সহায্য নিতে পরামর্শ দিলেন। কিসিঞ্জারের চীন-বৈঠকের এক মাস পর ‘রুশ-ভারত শান্তি বন্ধুত্ব ও সহযোগিতা’ অর্থাৎ ‘রুশ-ভারত মৈত্রী’ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় ৯ অগাস্ট ১৯৭১। এর ফলে ইয়াহিয়া খান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ফাঁসির আদেশ দিতে ভয় পেয়ে যায়।

স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় অন্যতম ভূমিকা পালন করে মুজিবনগর সরকারের অভ্যন্তরীণ প্রশাসন। অভ্যন্তরীণ প্রশাসন ছিল সামরিক ও বেসামরিক এ দু’ভাগে বিভক্ত। সামরিক প্রশাসন নিয়ন্ত্রিত হতো প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে। বাংলাদেশের সমগ্র যুদ্ধাঞ্চলকে ১১টি সেক্টরে ভাগ করে অধিনায়ক নিযুক্ত করা ও যুদ্ধ পরিচালনা তদারকি করা ছিল এ মন্ত্রণালয়ের প্রধান কাজ। বেসামরিক প্রশাসনের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছিল সাধারণ প্রশাসন এবং তথ্য ও বেতার বিভাগ। সাধারণ প্রশাসন বিভাগ নিয়োগ, বদলি, শৃঙ্খলা রক্ষা ইত্যাদি সংস্থাপন বিষয়ক যাবতীয় দায়িত্ব পালন করত। আঞ্চলিক প্রশাসন ছিল বেসরকারি প্রশাসনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। শরণার্থী সমস্যা, আঞ্চলিক সামরিক-বেসামরিক বিষয়াবলির সুষ্ঠু সমন্বয় ইত্যাদি ছিল আঞ্চলিক প্রশাসনের প্রধান কাজ। এছাড়া অভ্যন্তরীণ প্রশাসনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ ছিল স্বাধীন বাংলা বেতারকেন্দ্র। এ বেতারকেন্দ্রে প্রায় ১০০ লোক নিয়োগ করা হয়েছিল। বিভিন্ন রণাঙ্গনের যুদ্ধের খবর, পাকিস্তানি বাহিনীর হত্যা, ধর্ষণ ও নির্যাতনের খবর এবং পাকিস্তানিবাহিনীকে ধিক্কার দিয়ে ও বিদ্রুপ করে রচিত চরমপত্র এই বেতার কেন্দ্রের মাধ্যমে প্রচার করা হত। এ বেতারকেন্দ্রটি মুক্তিযোদ্ধাদেরকে দারুণভাবে উজ্জীবিত করতো।

মুজিবনগর সরকার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরীকে বহির্বিশ্বে বিশেষ দূত নিয়োগ করে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে বহির্বিশ্বে সমর্থন ও জনমত আদায়ের চেষ্টা করেন। এ ধরনের তৎপরতার ফলে ঐসব দেশে মুক্তিযুদ্ধের অনুকূলে সংবাদ শিরোনাম প্রকাশিত হয়েছিল। ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল বিচারপতি চৌধুরী বঙ্গবন্ধুর শারীরিক সুস্থতা ও প্রাণহানির আশঙ্কায় বৃটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী স্যার আলেকের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন এবং বঙ্গবন্ধুর শারীরিক সুস্থতা সম্পর্কে নিশ্চিত হন। ১৪ মে ব্রিটিশ পার্লামেন্টের হাউস অব কমন্সে সর্বসম্মতভাবে প্রস্তাব পাশ হয় যে, আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে ব্রিটেনের যে প্রভাব রয়েছে তা প্রয়োগ করে পাকিস্তানকে সেনাবাহিনী প্রত্যাহারে বাধ্য করা ব্রিটিশ সরকারের কর্তব্য।
পাকিস্তানের অত্যাচারী সামরিক সরকারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ এবং স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দানের জন্য বিশ্বজনমতকে প্রভাবিত করার উদ্দেশ্যে ১ আগস্ট লন্ডনের ট্রাফালগার স্কোয়ারে এক বিরাট জনসমাবেশ অনুষ্ঠিত হয় যেখানে ২০ হাজারেরও বেশি বাঙালি যোগ দেন।

আগস্ট নিউইয়র্কের ম্যাডিসন স্কোয়ার গার্ডেনে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে বাঙালি শরণার্থীদের সাহায্যে অর্থ তহবিল গঠনের লক্ষ্যে ‘দ্যা কনসার্ট ফর বাংলাদেশ’-এর আয়োজন করে আমেরিকা প্রবাসী বাংলাদেশি জনগণ। সে কনসার্টেপ্রায় ৪০ হাজার দর্শকের উপস্থিতিতে সাবেক বিটলস্ সঙ্গীতদলের লিড গিটারবাদক জর্জ হ্যারিসন,ভারতীয় সেতারবাদক রবিশঙ্কর ও সরোদবাদক ওস্তাদ আলী আকবর খাঁসহ আরো অনেকে অংশগ্রহণ করেন। মার্কিন কবি অ্যালেন গিন্সবার্গ ১৯৭১ সালের সেপ্টেম্বরে কোলকাতা সংলগ্ন ভারতীয় সীমান্ত ধরে বাংলাদেশের কাছাকাছি আসেন। তাঁর সঙ্গে ছিলেন কোলকাতার সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়সহ বিশিষ্ট ব্যক্তিগণ। সীমান্ত অঞ্চলে শরণার্থীদের অশেষ দুর্দশা ও লাঞ্ছনাকে অবলম্বন করে তিনি তাঁর অন্যতম দীর্ঘ কবিতা ‘সেপ্টেম্বর অন যশোর রোড’ রচনা করেন। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের জন্যে অর্থসহায়তা করার লক্ষ্যে তিনি বিশিষ্ট রুশ কবি ইয়েভগেনি ইয়েভতুশেঙ্কোর সঙ্গে একটি যৌথ কবিতা পাঠ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলেন।

লন্ডনস্থ পাকিস্তান হাইকমিশনে নিয়োজিত দ্বিতীয় সেক্রেটারি মহিউদ্দিন আহমদ পাকিস্তানের চাকরি হতে ইস্তফা দিয়ে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করেন। ১ আগস্ট বাংলাদেশ সরকারে প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করেন ওয়াশিংটনে পাকিস্তানি দূতাবাসের ইকনমিক কাউন্সিলর এ এম এ মুহিত। ৪ আগস্ট ওয়াশিংটনে অবস্থিত পাকিস্তান দূতাবাস ও নিউইয়র্কে অবস্থিত জাতিসংঘ দপ্তরে পাকিস্তানি মিশনের মোট ১৫ জন বাঙালি কূটনীতিক একযোগে পদত্যাগ করে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করে। ৫ আগস্ট বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করেন লন্ডনস্থ পাকিস্তান হাইকমিশনের ডিরেক্টর অব অডিট ও অ্যাকাউন্টস লুৎফুল মতিন। বঙ্গবন্ধুর বিচারের প্রতিবাদে ১১ আগস্ট লন্ডনের হাইড পার্কে এক বিরাট জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। এই জনসভায় পাকিস্তান হাইকমিশনের কয়েকজন অফিসার বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করেন। ম্যানিলায় নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত খুররম খান পন্নী এবং নাইজেরিয়ায় নিয়োজিত কূটনীতিক মহীউদ্দিন আহমদ জায়গিরদার ১৩ সেপ্টেম্বর পাকিস্তানের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করে বাংলাদেশের পক্ষে যোগ দেন। ৪ অক্টোবর নয়াদিল্লিস্থ পাকিস্তানি দূতাবাসের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে হুমায়ূন রশিদ চৌধুরী প্রকাশ্যে বাংলাদেশ আন্দোলনে যোগদান করেন। ৮ অক্টোবর লন্ডনস্থ পাকিস্তান হাইকমিশনের ‘পলিটিক্যাল কাউন্সিলর’ রেজাউল করিম বাংলাদেশের পক্ষে যোগদান করেন। আর্জেন্টিনায় পাকিস্তানি দূতাবাসে নিয়োজিত বাঙালি রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোমিন ১১ অক্টোবর পদত্যাগ করে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করেন। ৩ নভেম্বর সুইজারল্যান্ডের পাকিস্তানি দূতাবাসের সেকেন্ড সেক্রেটারি ওয়ালিউর রহমান বাংলাদেশের পক্ষে যোগ দেন।

মে মাসের প্রথম দিকে শেখ মুজিবের অর্থনৈতিক উপদেষ্টা অধ্যাপক রেহমান সোবহান সরকারের নির্দেশে যুক্তরাষ্ট্রে যান। তিনি ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশ সরকারের প্রথম প্রতিনিধি। দ্বিতীয় দফায় তিনি সেপ্টেম্বর হতে নভেম্বর পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করেন।AID Consortium-এর সদস্য দেশের প্রতিনিধিদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তিনি পাকিস্তানকে বৈদেশিক সাহায্য বন্ধ করার যুক্তি উপস্থাপন করেন। এসব তৎপরতার ফলে জুন মাসে বিশ্বব্যাংকের এক প্রতিনিধিদল বাংলাদেশ সফর করে। তাদের রিপোর্টের ভিত্তিতে দাতাগোষ্ঠী পাকিস্তানকে নতুন সাহায্যদানে বিরত থাকে এবং ঋণ রেয়াতি দিতেও আপত্তি জানায়। ২ অক্টোবর ওয়াশিংটনে দাতাগোষ্ঠীর সভা বসে। এবারও পাকিস্তানকে সাহায্য প্রদান স্থগিত করা হয়।

মুজিবনগর সরকার ২৪ মে বিচারপতি চৌধুরীকে যুক্তরাষ্ট্রে প্রেরণ করে। জনাব চৌধুরী ছিলেন মুজিবনগর সরকারের দ্বিতীয় প্রতিনিধি যিনি যুক্তরাষ্ট্রে যান। কয়েকদিনের মধ্যেই তিনি নরওয়ে, সুইডেন, মিশর, ইরাক, জর্ডান, সিরিয়া, সৌদি আরব, আলজেরিয়া প্রভৃতি দেশের রাষ্ট্রদূত এবং জাতিসংঘে অবস্থিত আন্তর্জাতিক প্রেসক্লাবের প্রেসিডেন্ট ড. যোগেন্দ্র কুমার ব্যানার্জীর সাথে সাক্ষাৎ করেন। এর ফলে মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে বিভিন্ন দেশ পরিষ্কার ধারণা লাভ করে। ১৯ আগস্ট কানাডার টরেন্টোতে বাংলাদেশ সংকট নিয়ে একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। বৃটেন, কানাডা, ভারত, যুক্তরাষ্ট্র প্রভৃতি দেশের জনপ্রতিনিধিসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের অনেক গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন। ‘Toronto Declaration’ নামে যে ঘোষণা দেওয়া হয় সেখানে পাকিস্তানে সব ধরনের সাহায্য বন্ধ রাখা এবং সমস্যার রাজনৈতিক সমাধান দাবি করে শেখ মুজিবের মুক্তি ও জীবনের নিশ্চয়তা চাওয়া হয়।

২৬ জুলাই হাউস অব কমন্সের হারকোর্ট রুমে স্বাধীন বাংলাদেশের ৮টি ডাকটিকিট প্রকাশ উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। দশ পয়সার টিকিটে বাংলাদেশের মানচিত্র এবং পাঁচ পয়সার টিকিটে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের প্রতিকৃতি ব্যবহৃত হয়। বিদেশে চিঠিপত্র পাঠাতে ভারত সরকার এই ডাক টিকিটসমূহ ব্যবহারের অনুমতি দেয়। এর ফলে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন বাংলাদেশ একটি স্বাধীন দেশের মর্যাদা পায়।

১৯৭১ সালের ৮ মে যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন অ্যাকশন কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের জরুরি মিটিংয়ে মুক্তিযুদ্ধের সমর্থনে ‘বাংলাদেশ ফান্ড’ নামে একটি তহবিল গঠন করা হয়। এই ফান্ড ৩,৭৬,৫৬৮ পাউন্ড পরিমাণ অর্থ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের জন্য সংগ্রহ করে যা সরাসরি বাংলাদেশ সরকার গ্রহণ করেছিল। এভাবে বহির্বিশ্বে বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন কূটনৈতিক তৎপরতার মধ্যদিয়ে এগিয়ে চলে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ। অবশেষে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর পূর্ব পাকিস্তানে নিয়োজিত পাকিস্তান বাহিনীর অধিনায়ক লে. জেনারেল নিয়াজী পূর্বাঞ্চলে নিয়োজিত ভারতীয় ও বাংলাদেশ বাহিনীর যৌথ কমান্ডার লে. জেনারেল জগজিৎ সিং অরোরার নিকট বিকাল ৪.৩১ মিনিটে আনুষ্ঠানিকভাবে আত্মসমর্পণ করে।

মুজিবনগর সরকার ছিল জনগণের নির্বাচিত প্রতিনিধিদের নিয়েই গঠিত সরকার। মুক্তিযুদ্ধের উপর এর প্রভাব ছিল সুদূরপ্রসারী।১৭৫৭ সালের ২৩ জুন পলাশীর আম্রকাননে বাংলার শেষ নবাব সিরাজউদ্দৌলার পরাজয়ে বাংলার যে স্বাধীনতার সূর্য অস্তমিত হয়েছিল তার ঠিক ২১৪ বছর পরে অর্থাৎ ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল বৈদ্যনাথতলা গ্রামের আরেক আম্রকাননে যেন বাংলার সেই অস্তমিত সূর্য আবারও উদিত হয়।

লেখক :
আবদুল্লাহ আল-মামুন
পুলিশ সুপার, চুয়াডাঙ্গা

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2020 nagorikkhobor.Com
Theme Developed BY ThemesBazar.Com